বিশ্বাসঘাতক মেঘনাদের অন্তর্জলী যাত্রা – ১

ব্রজদার কথা মনে আছে?

গৌরকিশোর ঘোষ সৃষ্ট সেই চরিত্র ব্রজরাজ কারফর্মা, যিনি মাইকেলকে প্রাইভেট পড়িয়েছিলেন, বিদ্যাসাগরকে বিধবা বিবাহ আন্দোলনে সাহায্য করেছিলেন, বিবেকানন্দকে আমেরিকার টিকিট কিনে দিয়েছিলেন… মায় ডিনামাইট আবিষ্কারক আলফ্রেড নোবেল-কে দিয়েছিলেন নোবেল পুরস্কারের আইডিয়া! যিনি প্রমাণ করেছিলেন, সত্যযুগের ভারতবর্ষে বেতার ব্যবস্থা চালু ছিল!

এহেন ব্রজদার মিথ সেলুলয়েডে ফুটে উঠেছিল উত্তমকুমারের মাধ্যমে। বাংলা শব্দভাণ্ডারে ‘গুল্প’ ব্রজদার মোক্ষম দান! ফুল ফুটুক না ফুটুক, ব্রজদার বৈঠকী আড্ডায় ফুটে উঠত শতসহস্র ‘গুল’; অর্থাৎ ‘নির্ভেজাল সত্যি ঘটনা!’ তেমন‌ই আপনাদের মত অন্তর্জালিত পাঠকের দরবারে কোন এক কল্পিত আড্ডার পরিসরে এই ‘স্বয়ং’ যদি হঠাৎ দাবি করে বসে- “নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর থেকেও কোন এক ‘ব্যাক্তির’ ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে অবদান অনেক গুণ বেশি…” কেমন লাগবে সেই ঔদ্ধত্য!?

তিনি ছিলেন মেঘনাদের ন্যায় যোদ্ধা। ভুল বললাম। মহাযোদ্ধা। প্রতিটি কাজের পরেই সযত্নে মুছে ফেলতেন তার হাতের ছাপ। যার জন্য তিনি ছিলেন পুলিশের অচ্ছুৎ। চোর পুলিশের খেলায় দিনের পর দিন… থুড়ি, বছরের পর বছর ধুলো দিয়ে গেছেন পুলিশের চোখে! ভারতের সর্বকালের সেরা ভাষাবিদ হরিনাথ দে-র মত ৩৪ টি ভাষায় পারঙ্গম না হলেও অন্তত ডজন খানেক প্রাদেশিক এবং খান চারেক বৈদেশিক ভাষায় ছিলেন অত্যন্ত দক্ষ! তার পাশাপাশি ছিল ছদ্মবেশ ধারণের অদ্বিতীয় ক্ষমতা! আরো কত শত প্রতিভার এবং প্রতিকূলতার সংমিশ্রণে তাঁর জাগতিক চরিত্র সমৃদ্ধ হয়েছিল তার খতিয়ান…

…দেবার জন্যই আমার এই ‘স্বয়ংক্রিয়’ প্রয়াস! আজ ইতিহাসের পাতায় তিনি ব্রাত্য। মেঘনাদের মত‌ই যুদ্ধ চালিয়ে ছিলেন পর্দানশীন হয়ে, আর অযান্ত্রিক জীবনের পরিসমাপ্তিতে ঘটে তাঁর অন্তর্জলী যাত্রা।

পাঠকদের কাছে সবিনয় নিবেদন, সেই অজানা ‘ব্যাক্তির’ পরিপ্রেক্ষিত তুলে দিচ্ছি আপনাদের দরবারে। আপনাদের কাছে উপস্থাপন করতে চলেছি পরাধীন ভারতবর্ষের শ্রেষ্ঠতম মহাবিদ্রোহীর উপাখ্যান। যা কালের হস্তাবলেপনে বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে গেছে ক্রমশঃ…

কে তিনি?

জানতে হলে সঙ্গে থাকুন!

ধন্যবাদ সহ

– ‘স্বয়ং’

You may also like...

3 Responses

  1. Sagnik Chakraborty says:

    বিপ্লবী মহানায়কের ওপর রিসার্চ-নির্ভর লেখা পড়ার আগ্রহে রইলাম।

  2. Prasoon says:

    Waiting

  3. স্বয়ং says:

    অপেক্ষায় থাকুন!
    আশাকরি আপনাদের কাছে একটা দুর্ধর্ষ সত্য কাহিনী পৌঁছে দিতে পারবো!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *